ভোটার আইডি কার্ড সংশোধন

ভোটার আইডি কার্ড সংশোধন করতে কত দিন লাগে জানুন 2022

ভোটার আইডি কার্ড সংশোধন করতে কত দিন লাগে জানুন 2022

ভোটার আইডি কার্ড সংশোধন করতে কত দিন লাগে: কোন দেশের নাগরিকত্ব লাভ করতে হলে আগে ভোটার হতে হবে। আমাদের দেশের প্রত্যেক প্রাপ্তবয়স্ক জনগণের ভোটার হতে হয়। কিন্তু ভোটার হওয়ার সময় ভোটার আইডি কার্ডে বিভিন্ন তথ্য ভুল থাকে। আজকের আলোচনার বিষয় হবে, NID Card  কার্ড সংশোধন করতে কতদিন লাগে ও ভোটার আইডি কার্ড সংশোধন করতে কত টাকা লাগে। 

 

ভোটার আইডি কার্ড সংশোধন করতে কত দিন লাগে। 

বর্তমানে দুই ভাবে ভোটার আইডি কার্ড সংশোধন করা যায়। অনলাইনের মাধ্যমে ও উপজেলা নির্বাচন কমিশন অফিসে। আজকে আমরা দুটি পদ্ধতি আপনাদের সামনে তুলে ধরার চেষ্টা করব।অনলাইনে জাতীয় পরিচিয় পত্র কার্ড সংশোধন করতে সর্বোচ্চ ১৫ থেকে ২০ দিন সময় লাগে আবার কখনো লম্বা সময় লাগতে পারে। কিন্তু আপনার কোন তথ্য যদি ভুল থাকে ,সেক্ষেত্রে অফিস কর্তৃপক্ষ আরো বেশি দিন সময় নিবে। 

অনলাইনে জাতীয় পরিচিত পত্র  সংশোধন করতে কতদিন সময় লাগবে ,এটা সঠিক ভাবে বলা যায় না। ভোটার আইডি কার্ড সংশোধনের সময় নির্ভর করে আপনার ভোটার তথ্য উপরে। আপনার ভোটার আইডি কার্ডের তথ্য যত সঠিক হবে। ভোটার আইডি কার্ড সংশোধন ততো তাড়াতাড়ি হবে। কিন্তু সঠিক কোনো সময়সীমা বলা যায় না। কারণ নির্বাচন কমিশন অফিস ও ওয়েবসাইটে প্রচুর কাজ থাকে। 

অনেক সময় কাজের ব্যস্ততার কারণে আপনার কাজটি পিছিয়ে যেতে পারে। এতে ভোটার আইডি কার্ড সংশোধন নিয়ে চিন্তা করার কোন বিষয় নাই। এছাড়াও আপনার যদি অতি দ্রুত NID Card  সংশোধন করার দরকার হয়ে থাকে। তাহলে উপজেলা নির্বাচন কমিশন অফিসে গিয়ে যোগাযোগ করতে পারেন। জাতীয় পরিচিত পত্র সংশোধন করার দ্রুততম উপায় এটি। 

অনেক সময় উপজেলা নির্বাচন কমিশন অফিসে গিয়েও NID CARD সংশোধন করা যায় না। এজন্য আপনি জেলা ও বিভাগীয় পর্যায়ে নির্বাচন কমিশন অফিসে যেতে পারেন। এক্ষেত্রে আপনার কাজটি অনেক দ্রুত শেষ করা হবে। এছাড়াও বাংলাদেশ নির্বাচন কমিশন ওয়েবসাইট সংশোধন সেবা নিতে পারেন। 

ভোটার আইডি কার্ড সংশোধন করতে কি কি লাগে। 

অনেক কারণেই এন আইডি কার্ডের নিজের তথ্য ভুল হয়ে থাকে। ভোটার আইডি কার্ডে নিজের তথ্য সংশোধন করা আমাদের দরকার।

কারণ আপনার শিক্ষাগত সার্টিফিকেটের সাথে ভোটার আইডি কার্ডের তথ্য যদি অমিল থাকে। তাহলে চাকরি নেওয়ার সময় আপনি জটিলতায় পড়বেন। তাই আপনার সার্টিফিকেট ও  এন আইডি কার্ডের তথ্য সব সময় একই রাখার চেষ্টা করবেন। এন  আইডি কার্ড সংশোধনের জন্য এস এস সি/ইন্টারমিডিয়েট পরীক্ষার সার্টিফিকেট,

জন্ম নিবন্ধন এর ফটোকপি, পিতা-মাতার এন আইডি কার্ডের ফটোকপি ও বিবাহিত হলে কাবিননামার কাগজ ইত্যাদি। এছাড়াও যদি কোন ডকুমেন্ট এর প্রয়োজন হয়। তাহলে অফিস কর্তৃপক্ষ আপনাকে জানিয়ে দেবে‌। 

ভোটার আইডি কার্ড সংশোধন করতে কত দিন লাগে

ভোটার আইডি কার্ড সংশোধন করতে কত টাকা লাগে। 

আপনার  এন  আইডি কার্ড যদি কোনো তথ্য ভুল হয়ে থাকে অতি দ্রুত সংশোধন করতে হবে। ভোটার আইডি কার্ড সংশোধন করতে আপনাকে সরকারকে কিছু টাকা ফি প্রদান করতে হবে। এন  আইডি কার্ড সংশোধন ফি সংশোধনী অনুযায়ী নির্ধারণ হবে। 

  •  জাতীয় পরিচয় পত্রের নাম ও ঠিকানা সংশোধন করতে ৩০০ টাকা লাগবে। 
  • এনআইডি কার্ডের নিজের জন্ম তারিখ মাস সাল পরিবর্তন করতে ৪৫০ টাকা লাগে। 
  •  ভোটার আইডি কার্ডে মাতা ও পিতার নাম সংশোধন ফি ৩০০ টাকা। 

NID Card  সংশোধন ফি খুব সহজেই বিকাশ রকেট ও নগদ এর মাধ্যমে দেওয়া যায়। সংশোধনের টাকাটা অনলাইনে দিতে হবে। এটা খুবই সহজ একটি উপায়। টাকা প্রদান করার সঙ্গে সঙ্গে আপনার তথ্যগুলো সংশোধন করা হবে। সর্বোচ্চ সাত দিনের মধ্যে আপনার সংশোধন ভোটার আইডি কার্ড হাতে পেয়ে যাবেন। এ জন্য অনলাইন থেকে ডাউনলোড করতে হবে। 

অনলাইনে ভোটার আইডি কার্ড সংশোধন।

অনলাইনে খুব সহজেই জাতীয় পরিচিত পত্র কার্ড সংশোধন করতে পারেন। এজন্য আপনাকে নির্বাচন কমিশন অফিসে এই ওয়েবসাইটে প্রবেশ করতে হবে। তারপর জাতীয় পরিচিত পত্র কার্ড সংশোধন অপশনে ক্লিক করতে হবে। এখন আপনার যে তথ্যটির সংশোধন করতে হবে। এই তথ্য লিখে দেখুন অপশনে ক্লিক করতে হবে। 

তারপর সংশোধন অনুযায়ী ফি প্রদান করতে হবে। এন  আইডি কার্ড সংশোধন ফি বিকাশ রকেট এর মাধ্যমে পে করা যায়। এটা আপনি ইউটিউব ভিডিও দেখে শিখে নেবেন। টাকা প্রদান করার পর আপনার ভোটার আইডি কার্ড সংশোধন প্রক্রিয়া সম্পন্ন হবে। 

ভোটার আইডি কার্ড সংশোধন করতে কত দিন লাগে

আমাদের শেষ কথা। 

আজকের মূল আলোচ্য বিষয় ছিল ভোটার আইডি কার্ড সংশোধন করতে কতদিন সময় লাগে। আশা করি জাতীয় পরিচিত পত্র কার্ড সংশোধন সম্পর্কে সকল তথ্য আপনাকে দিতে পেরেছি। এছাড়াও যদি জাতীয় পরিচিত পত্র কার্ড সম্পর্কে কোন তথ্য জানার থাকলে, আমাদের ব্লগে কমেন্ট করতে পারেন। আমাদের সময় দেওয়ার জন্য আপনাকে ধন্যবাদ। 

আপনার জন্য আরো গুরত্বপূর্ণ তথ্য

Leave a Comment

Your email address will not be published.