নগদ একাউন্টের সুবিধা

নগদ একাউন্টের সুবিধা 2022 | যেভাবে খুলবেন নগদ একাউন্ট

নগদ একাউন্টের সুবিধা ২০২২

নগদ একাউন্টের সুবিধা: নগদ বাংলাদেশের একটি মোবাইল ব্যাংকিং সেবা। মাত্র এক বছর আগে নগদ মোবাইল ব্যাংকিং সেবা চালু হয়। কিন্তু এই এক বছরে নগদ মোবাইল ব্যাংকিং সেবা অনেক জনপ্রিয়তা অর্জন করেছে। জনপ্রিয়তা অর্জনের অনেকগুলো কারণের মধ্যে নগদ একাউন্টের সুবিধা গুলো অন্যতম। 

নগদ একাউন্ট এর সুবিধা গুলো অন্যান্য মোবাইল ব্যাংকিং কখনো দিবে না। তাই সকল মোবাইল ব্যাংকিং গ্রাহকরা নগদ একাউন্ট এর প্রতি অনেক সন্তুষ্ট। নগদ একাউন্ট তৈরি করতে ভোটার আইডি কার্ড লাগেনা। এছাড়াও নগদ একাউন্ট এর বিভিন্ন সুযোগ-সুবিধা রয়েছে। আজকে আমরা নগদ একাউন্টের সুবিধা ও অসুবিধাগুলো জানতে পারবো। 

 

নগদ একাউন্টের সুবিধা ২০২২। 

নগদ একাউন্ট দিচ্ছে আমাদের একের অধিক বিভিন্ন রকম সুবিধা। যা একটা মোবাইল ব্যাংকিং সেবা থেকে পাওয়া অসম্ভব। কিন্তু এরকম সকল অসম্ভব সেবাসমূহ আমরা পাচ্ছি নগদ মোবাইল ব্যাংকিং এ। নগদ একাউন্ট এর সুবিধা গুলো নিম্নরূপ:- 

  • ক্যাশ আউট চার্জ
  • সেন্ড মানি
  • অ্যাড মানি
  • বিদ্যুৎ বিল
  • ইন্টারনেট বিল
  • নগদ থেকে বিকাশে টান্সফার
  • টাকা সঞ্চয়
  • মোবাইল রিচার্জ

 

ক্যাশ আউট চার্জ।

আমাদের দেশের সর্বনিম্ন ক্যাশ আউট চার্জ নিচ্ছে নগদ। নগদ একাউন্টের সুবিধা গুলোর মধ্যে সর্বপ্রথম আসে ক্যাশ আউট চার্জ সর্বনিম্ন। বাংলাদেশের অন্যান্য মোবাইল ব্যাংকিং সেবা সমূহ সর্বনিম্ন ২% চার্জ প্রযোজ্য করে। কিন্তু নগদ একাউন্ট সর্বনিম্ন ০.৯৯% ও ১.৪% চার্জ প্রযোজ্য করছে। যেটা বাংলাদেশের ইতিহাসে আগে কখনো হয়নি। 

 

সেন্ড মানি ফ্রী। নগদ একাউন্টের সুবিধা

মোবাইল ব্যাংকিং সেবা সমূহের মধ্যে সেন্ড মানি সেবাটা বেশি ব্যবহার হয়। কিন্তু সেই সেবাতে যদি চার্জ প্রযোজ্য থাকে, তাহলে গ্রাহকদের অনেক কষ্ট হয়ে যায়। গ্রাহকদের এই কষ্টকে দূর করতে নগদ একাউন্ট দিচ্ছে সম্পূর্ণ ফ্রিতে সেন্ড মানি সেবা। আপনার ইচ্ছামত আনলিমিটেড টাকা সম্পূর্ণ বিনামূল্যে সেন্ড মানি করতে পারবেন। নগদ একাউন্টের সুবিধা গুলোর মধ্যে এটি একটি। নগদ মোবাইল অ্যাপ্লিকেশন থেকে সহজেই সেন্ড মানি করা যায়। 

অ্যাড মানি। নগদ একাউন্টের সুবিধা

 

অ্যাড মানি বলতে বাংলাদেশের অন্যান্য এজেন্ট ব্যাংকের অ্যাকাউন্ট থেকে, মোবাইল ব্যাংকিং একাউন্ট এ টাকা টান্সফার করা কে বোঝায়। অনেক সময় আমাদের ব্যাংকে যাওয়ার সময় হয়না। এজন্য আপনি সহজেই নগদ একাউন্ট থেকে আপনার এজেন্ট ব্যাংকের একাউন্ট যুক্ত করতে পারেন। এজেন্ট ব্যাংক থেকে নগদ একাউন্ট এর টাকা আছে কোন খরচ হয় না। নগদ একাউন্টের সুবিধা মধ্যে অ্যাড মানি দ্বিতীয়। 

 

বিদ্যুৎ বিল। নগদ একাউন্টের সুবিধা

নগদ একাউন্টের সুবিধা

আমাদের প্রতি মাসে বিদ্যুৎ বিলের কাগজ বাসায় চলে আসে। কাজের ব্যস্ততার জন্য দোকানে গিয়ে বিদ্যুৎ বিল দেওয়া অনেক সময় কষ্ট হয়ে যায়। আপনার এই কষ্টকে দূর করতে নগদ একাউন্ট দিচ্ছে বিদ্যুৎ বিল দেওয়ার সুবিধা। ঘরে বসেই সহজেই বিদ্যুৎ বিল দেওয়া যায়। এজন্য আপনার একটা নগদ একাউন্ট থাকতে হবে। নগদ অ্যাপের মাধ্যমে খুব সহজে বিদ্যুৎ বিল দেওয়া যায়। নগদ একাউন্টের মাধ্যমে বিদ্যুৎ বিল দিতে কোন খরচ হয় না। 

 

ইন্টারনেট বিল।নগদ একাউন্টের সুবিধা

প্রায় সবারই বাসায় ইন্টারনেট কানেকশন রয়েছে। ইন্টারনেট বিল দেওয়া দোকানে গিয়ে দেওয়া সম্ভব হয় না। তাই নগদ একাউন্টের মাধ্যমে ইন্টারনেট বিল সহজে দেওয়া যায়। ইন্টারনেট বিল দেওয়ার জন্য নগদ মোবাইল এপ্লিকেশন ইন্সটল করতে হবে। এরপর আপনার নাম্বার ও পাসওয়ার্ড দিয়ে লগইন করতে হবে। বিল অপশনে ক্লিক করে ইন্টারনেট বিল দিতে হবে। এটা খুবই সহজ একটা মাধ্যম। 

 

নগদ থেকে বিকাশে টাকা ট্রান্সফার।

নগদ এমনই একটি মোবাইল ব্যাংকিং সেবা, যেখানে অন্যান্য মোবাইল ব্যাংকিং সেবা তো টাকা ট্রান্সফার করা যায়। আমাদের দেশের অন্যান্য মোবাইল ব্যাংকিং সেবা তে এরকম কোন অসুবিধা নাই। নগদ একাউন্ট আমাদের এরকম সেবা দিচ্ছে। অনেক সময় আমাদের বন্ধুদের নগদ থেকে বিকাশে টাকা সেন্ড করতে হয়। এরকম অসম্ভব কাজ নগদ একাউন্টের মাধ্যমে সম্ভব। 

টাকা সঞ্চয়।

টাকা সঞ্চয় করতে আমরা এজেন্ট ব্যাংকের সহায়তা নিয়ে থাকি। বাংলাদেশের মোবাইল ব্যাংকিং সেবা সমূহ তে টাকা সঞ্চয় কোন সুবিধা ছিল না। কিন্তু ও নগদ একাউন্ট আসার পরে, টাকা সঞ্চয় করার অসুবিধা দূর হয়ে গেছে। আপনার একটা নগদ মোবাইল ব্যাংকিং একাউন্ট থাকলে টাকা সঞ্চয় করা যাবে। নগদ একাউন্টে টাকা সঞ্চয় করলে ৭.৫% মুনাফা পাওয়া যাবে। 

অন্য পোষ্ট: ফ্রিল্যান্সিং এর কাজ সমূহ

মোবাইল রিচার্জ। 

মোবাইল রিচার্জ করার জন্য অবশ্যই ফ্লেক্সিলোডের দোকান প্রয়োজন হয়। গ্রাম অঞ্চলের ফ্লেক্সিলোডের দোকান অনেক কম থাকে। তাই মোবাইলে টাকা রিচার্জ করা অসুবিধা হয়ে যায়। কিন্তু আপনার যদি একটা নগদ একাউন্ট থাকে, তাহলে খুব সহজেই মোবাইলে টাকা রিচার্জ করতে পারবেন। মোবাইলে টাকা রিচার্জ করা একদম সিম্পল।  

 

নগদ একাউন্ট করতে কি কি লাগে।

নগদ একাউন্ট এর সেবা সমূহ পেতে প্রথমে একটি নগদ একাউন্ট তৈরি করতে হবে। অনেকেই জানতে চাই নগদ একাউন্ট করতে কি কি লাগে। নগদ একাউন্ট তৈরি করতে কোন ভোটার আইডি কার্ড জন্ম নিবন্ধন কাগজের প্রয়োজন নাই। আপনার হাতে থাকা মোবাইল ফোন ও একটি সচল মোবাইল নাম্বার দিয়ে নগদ একাউন্ট তৈরি করতে হবে। 

আপনার সচল মোবাইল নাম্বারে যদি আগে নগদ একাউন্ট খোলা থাকে। তাহলে সেই সিমে আর নগদ একাউন্ট খোলা যাবে না। যে মোবাইল নাম্বারের নগদ একাউন্ট খোলা নাই। আপনার মোবাইলে *১৬৭# ডায়াল করুন। এরপর চার সংখ্যার পিন কোড দিতে হবে। পুনরায় আবার সেই চার সংখ্যার পিন কোড দিতে হবে। তৈরি হয়ে গেল নগদ মোবাইল ব্যাংকিং সেবা। 

 

একটি আইডি কার্ড দিয়ে কয়টি নগদ একাউন্ট খোলা যাবে।

অনেকেই জানতে চাই একটি আইডি কার্ড দিয়ে কয়টি নগদ একাউন্ট খোলা যায়। একটি আইডি কার্ড দিয়ে মাত্র একটি নগদ একাউন্ট খুলতে পারবেন। একটি আইডি কার্ড দিয়ে কখনই একের অধিক নগদ একাউন্ট খোলা যায় না। এ সম্পর্কে আরও বিস্তারিত জানতে ইউটিউব কে ব্যবহার করতে পারেন। 

 

উপসংহার

নগদ একাউন্ট দিচ্ছে আপনাদের একের অধিক অনেক সুবিধা। নগদ একাউন্ট এর সুবিধা গুলো পেতে, এখনই উপরের নিয়মে থেকে নগদ একাউন্ট তৈরি করুন। নগদ একাউন্ট তৈরি করা একদম সিম্পল। নগদ একাউন্টে ক্যাশ আউট, সেন্ড মানি, বিদ্যুৎ বিল, ইন্টারনেট বিল, অ্যাড মানি ও মোবাইল রিচার্জ করতে নগদ app ব্যবহার করতে পারেন। 

নগদ একাউন্টের সুবিধা ২০২২ নিয়ে আজকের এই আর্টিকেলটি আপনার কেমন লেগেছে। এরকম মোবাইল ব্যাংকিং তথ্য পেতে আমাদের ওয়েবসাইট ও ফেসবুক পেজের চোখ রাখুন। আমরা সব সময় আপনাদের সামনে সঠিক ও সত্য তথ্য তুলে ধরার চেষ্টা করি। 

আরো পড়ুনঃ

Leave a Comment

Your email address will not be published.