টাকা ইনকাম

টাকা ইনকাম করার সহজ উপায় বাংলাদেশে! Best instruction 2022

টাকা ইনকাম করার সহজ উপায় বাংলাদেশে।আমাদের দেশের টাকা ইনকাম করার অনেকগুলো পদ্ধতি রয়েছে। কেউ ব্যবসা করে টাকা ইনকাম করছে, কেউ চাকরি করে, আবার কেউ অনলাইনে কাজ করে টাকা ইনকাম করছে।বর্তমানে একটু সচেতন হলেই আপনি টাকা ইনকাম করতে পারবেন। টাকা ইনকাম করাটা এখন অনেকটা মুখে ভাত তুলে দেওয়ার মতো আপনি শুধু গিলবেন।

আপনার হাতে মোবাইল, মোবাইলে নেট কানেকশন তাও আপনি টাকা ইনকাম করতে পারতেছেন না? চিন্তা নাই, আজকে এমন কিছু টপিক নিয়ে আলোছনা করবো তা জানার পর আপনি টাকা ইনকাম করতে পারবেন। শুধু আপনাকে একটু সময় দিতে হবে এর পিছনে।

আজকে আমি অনলাইনের মাধ্যমে কিভাবে সহজে টাকা ইনকাম করা যায় সে সম্পর্কে আপনাদের জানাবো অর্থাৎ টাকা ইনকাম করার সহজ উপায় কি কি বাংলাদেশে সেসব বিষয় নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা করবো। 

বর্তমানে টাকা ইনকামের অন্যতম সহজ উপায়ে অনলাইনে ইনকাম। ছোট থেকে শুরু করে বয়স্ক মানুষ পর্যন্ত এখন অনলাইনে ফ্রিল্যান্সিং করছে। চাইলে আপনিও অনলাইনে ফ্রিল্যান্সিং এর কাজ করতে পারেন। অনলাইনে ফ্রিল্যান্সিং কাজ করতে আপনার বেশ কয়েকটি জিনিসের প্রয়োজন হবে।

যেমন ল্যাপটপ/মোবাইল ফোন, ইন্টারনেট কানেকশন ও কাজের দক্ষতা। এই তিনটা জিনিস থাকলে খুব সহজেই অনলাইন থেকে টাকা ইনকাম করা যায়। আজকে আলোচনার মূল বিষয় টাকা ইনকাম করার সহজ উপায় বাংলাদেশে ও অনলাইন থেকে টাকা ইনকামের উপায় গুলো নিয়ে। চলুন শুরু করা যাক টাকা ইনকাম করার সহজ উপায় বাংলাদেশে নিয়ে বিস্তারিত।

টাকা ইনকাম করার সহজ উপায় বাংলাদেশে 

এখন যুগটাই অনলাইনের অর্থাৎ ডিজিটাল যুগ। অনলাইনে আমরা ভার্চুয়ালি(মানে আপনি এক জায়গা থেকে অন্য জায়গার কাজ কমপ্লিট করা)  কাজ করে টাকা আয়ের মাধ্যম গড়ে তুলতে পারি। কিভাবে আমরা তা করতে পারি এবং এর উপায়গুলো কি কি অর্থাৎ  টাকা ইনকাম করার সহজ উপায়সমূহ কোনগুলো?

শুধু একটি কম্পিউটার আর ইনটারনেট কানেকশন লাগিয়ে মানুষ নিমিষেই হাজার হাজার টাকা আয় করছে। এখনকার ব্যবসায় সব অনলাইনে।কেও অনলাইনে দোকান দিচ্ছে আবার কেঊ সে দোকানে কাস্টমার নিয়ে টাকা নিচ্ছে যেটাকে affiliate marketing বলে। না হলে এমাজনের প্রতিষ্ঠাতা অনলাইনে অর্ডার আর ডেলিভারি করা প্রতিষ্ঠানের বদৌলতে, কি আর সবচেয়ে ধনী হতে পারতো? আর এমাজনের প্রতিষ্ঠাতার এই মাধ্যমে আমরাও তার (website) ওয়েবসাইট থেকে টাকা ইনকাম মানে কমিশন পেয়ে থাকি প্রোডাক্ট বিক্রি করে ।

কথা না বাড়িয়ে টাকা ইনকাম করার সহজ উপায় বাংলাদেশে মাধ্যমগুলো কি কি জেনে নেই। মাধ্যমগুলো হলোঃ

  • ই-কমার্স ব্যবসা করে আয়
  • ফ্রিলান্সিং করে
  • মোটর ব্লগ করে
  • অ্যাফিলিয়েট করে
  • প্রোডাক্ট বিক্রি করে
  • সোশ্যাল মিডিয়া মার্কেটিং
  • ইউটিউব
  • আর্টিকেল রাইটিং
  • ওয়েবসাইট থেকে ইনকাম
  • ফেসবুক পেইজ থেকে
  • মোবাইল অ্যাপস তৈরি করে
  • গেইম খেলে

ই-কমার্স ব্যবসা করে আয়

অনলাইনের পণ্য কেনা-বেচা কে ই-কমার্স ব্যবসা বলে। বর্তমানে অনলাইন ব্যবসা খুবই জনপ্রিয়। ই-কমার্স ব্যবসার জন্য আপনার বেশি টাকা পুঁজি দরকার হয় না। খুব অল্প টাকা দিয়ে ই কমার্স ব্যবসা শুরু করা যায়। কিন্তু ই-কমার্স ব্যবসা শুরু করার আগে, ই-কমার্স ব্যবসা সম্পর্কে সঠিক ধারণা থাকতে হবে। কিভাবে ই কমার্স ব্যবসা করলে লাভবান হওয়া যায়, ই-কমার্স ব্যবসার নিয়ম কানুন সম্পর্কে জানা দরকার। 

ই-কমার্স ব্যবসার জন্য আপনাকে কয়েকটি প্ল্যাটফর্ম বেছে নিতে হবে। প্ল্যাটফর্ম বলতে আপনি যেখানেই কমার্স ব্যবসা টা চালু করবেন। ফেসবুক, টুইটার, গুগোল ও ইউটিউব ই-কমার্স ব্যবসার অন্যতম প্ল্যাটফর্ম। এই কয়েকটা প্লাটফর্মে আপনি খুব সহজেই ঘরে বসেই অনলাইনে ব্যবসা করতে পারেন। ই-কমার্স ব্যবসার জন্য সবথেকে গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হলো মার্কেটিং। আপনাকে খুব ভাল হবে আপনার প্রোডাক্ট ও কোম্পানির মার্কেটিং করতে হবে।  

প্রাথমিক পর্যায়ে গুগল ও ফেসবুক এ টাকা দিয়ে মার্কেটিং করতে পারলে ভালো হবে। কারণ প্রথমেই ই-কমার্স ব্যবসার প্রচার ফ্রিতে সম্ভব না। তাই আপনাকে টাকা দিয়েই কোম্পানির প্রচার করতে হবে। অনলাইন ব্যবসার জন্য একটা ই-কমার্স ওয়েবসাইট তৈরি করুন। ফ্রিতে কমার্স ওয়েবসাইট তৈরি করা যায়। ই-কমার্স ওয়েবসাইট তৈরি করার পর খুব সুন্দরভাবে কাস্টমাইজ করতে হবে। তারপর আপনার প্রোডাক্ট গুলো আপনার ওয়েবসাইটে শেয়ার করতে হবে। 

টাকা ইনকাম করার সহজ উপায় বাংলাদেশে

ফ্রিলান্সিং করে টাকা ইনকাম করুন ক্যারিয়ার গড়ুন

বর্তমানে ফ্রিল্যান্সিং সবচেয়ে বেশি জনপ্রিয় এবং সবচেয়ে বেশি টাকা ইনকাম করার মাধ্যম। আর ফ্রিল্যান্সিং মানেই অনলাইনে টাকা ইনকাম করা স্ব স্ব স্থানে বসে। ফ্রিল্যান্সিং সম্পর্কে বিস্তারিত জানুন>

ফ্রিল্যান্সিং এর মাধ্যমে আপনি অনেক ভাবে টাকা ইনকাম করতে পারবেন। বলতে পারেন একরে ভিতর অনেক। 

আপনার প্রয়োজন হবে একটা কম্পিউটার, ইন্টারনেট সংযোগ, সাথে দক্ষতা।  আপনাকে জানতে হবে ফ্রিল্যান্সিং এর কাজ সমূহ কি কি? 

তারপর তা শিখে ভালোভাবে দক্ষতা নিয়ে আপনি মার্কেট প্লেসে গিগ খুলবেন, বিট করবেন। তার আপনাকে ধৈর্য্য সহকারে সময় দিয়ে অপেক্ষা করতে হবে।

অপেক্ষার ফল মিষ্টি।  এমন না যে আপনি গিগ খুললেন আর টাকা পেয়ে যাবেন। আপনাকে সময় দিয়ে সেখানে চেষ্টা করতে হবে। কাজ পাওয়ার মাধ্যম গুলো খুজতে হবে।

আপনার যদি ফাইভারে একাউন্ট থাকে তাহলে সেটাকে প্রথমে আনতে হবে তাহলে বায়ারের চোখে পড়বে। তারপর আপনি কাজ পাবেন, পাওয়ার সম্ভাবনা থাকে।

এটা অবশ্যই মনে রাখবেন, খালি কলসি বাজে বেশি। সুতরাং, দক্ষতা অর্জন করতে হবে ভালো করে।

মোটর ব্লগ করে টাকা ইনকাম করুন

মোটর ব্লগ

টাকা ইনকাম করার সহজ উপায় বাংলাদেশে মোটরসাইকেল বা বাইক দিয়ে টাকা ইনকাম করাটা এখন অনেক সহজ।মোটরসাইকেল বা বাইক, যে যেটাই বলেন। এ সময়টাতে যুবকরা প্রচুর ঘুরাঘুরি করতে দেখা যায় বাইক দিয়ে। আমরা প্রায় ফেসবুকে ইউটিউবে বাইক কোথাও যাচ্ছে,  আর সেটা ভুডিও করছে। আর আমরাও দেখি, ভালোই লাগে আর ভিউস তো অনেক হয়।

কথা হলো কিভাবে মোটর ব্লগ করবো বা এটা কি? এখানে আপনাকে আগে কিছু টাকা ইনভেস্ট করতে হবে সাথে আপনার বাইক থাকতে হবে।

আপনি যখন কোথাও ঘুরতে যান বাইক নিয়ে তখন আপনার সাথে কয়েকটা ক্যামেরা রাখবেন। মাথার হ্যালমেটে একটা ক্যামেরা লাগাবেন যাতে যাওয়া আসায় সব ভিডিও হয়।

তারপর এ ভিডিও গুলো থেকে সুন্দর সুন্দর দৃশ্য গুলো কেটে এডিট করেন। তারপর সেগুলে আপনার একটা ফেসবুক পেইজ খুলে আপলোড দেন। 

উপরের কাজগুলো করার আগে আপনার একটা বাইক লাগবে, এটাতো অবশ্যই; সাথে ক্যামেরা এবং ল্যাপটপ আর ফেসবুক পেইজ। ৫ হাজার টাকা খরচ করে পেইজটা বুস্ট করে ফলোয়ার বাড়িয়ে নিন। তারপর দৈনিক ভিডিও আপলোড দিন। হয়তো বাইকের না হয় যে কোনো জিনিসের। 

যখন সেটা ফেসবুক মনিটাইজেশন পলিসি পূরণ করবে তখন আপনাকে টাকা দেওয়া শুরু করবে ভিউর অনুযায়ী। আর আপনি সেখান থেকে কিছু টাকা পেয়ে সে টাকায় আবারো গুতে বের হবেন, ভিডিও করবেন, ভিডিও আপলোড দিবেন।

কয়েক মাস এভাবে পরিশ্রম করার পর আপনার ক্যামেরার টাকা, বুস্ট করা টাকা, আপনার বাইকের তেলের দাম উঠে যাবে আর তারপর থেকে যা আসবে সব আপনার বার্তি ইনকাম।

অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং affiliate marketing 

affiliate
affiliate marketing

এটাও জনপ্রিয়তার শীর্ষে আছে।এটা হচ্ছে মূলত কমিশন সিস্টেম।  আপনি কারো প্রোডাক্ট বিক্রি করে দিলেন তারপর সে কম্পানি আপনাকে কিছু কমিশন দিলে। যেমন ধরুন আমার একটা বোরকার দোকান আছে৷ আমার প্রচুর সেল দরকার। আর যতো সেল ততো আমার ইনকাম। এখন আপনি বললেন আমি আপনার বোরকা বিক্রি করে দিবে তবে প্রতি বোরকায় আমাকে ১০০/২০০ করে দিবেন।এভাবে অ্যাফিলিয়েট করে টাকা ইনকাম করতে পারবেন।

অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং আপনি দুই ভাবে করতে পারবেন 

  • টাকা ইনভেস্ট করে
  • টাকা ইনভেস্ট না করে

টাকা ইনভেস্ট করে 

আপনি টাকা ইনভেস্ট করে করলে আপনার ইনকাম ও বেশি হবে। যেমন ধরুন বিশ্বের বড়ো বড়ো কোম্পানি এমাজন Amazon আলিবাবা alibaba ইত্যাতি কোম্পানির সাথে আপনি এ কাজ করতে পারবেন। আপনার টাকা খরচ করে আগে ওয়েবসাইট তৈরী করতে হবে তারপর সেখানে পোস্ট করতে হবে। যে ক্যাটাগরি নিয়ে আপনি কাজ করতে চান সে ক্যাটাগরি নিয়ে পোস্ট করতে হবে।

পোস্ট করার পর সেই ওয়েবসাইট এবং পোস্টকে গুগলের প্রথম পেইজে আনতে হবে।তারপর মানুষ যখন আপনার ক্যাটাগরি অনুযায়ী সার্চ করে আপনার পেইজে ডুকবে, ডুকার পর আপনার দেওয়া লিংকে গিয়ে এমাজন বা আলিবাবা থেকে প্রোডাক্ট কিনলো আর সে কোম্পানিগুলো আপনাকে একটা নির্দিষ্ট কমিশন দিয়ে দিলো। আর এটার জন্য আপনাকে SEO এসইও শিখা লাগবে।ওয়েবস্টার তৈরী করা শিখতে হবে। আর যদি বলেন আমি শিখবো নাহ আমি টাকা খরচ করে সব করবো। তাহলেও পারেন। আরো জানুন এ ফেসবুক গ্রুপে 

ইনভেস্ট চাঁড়া অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং

ইনভেস্ট করা ছাড়াও আপনি টাকা ইনকাম করতে পারবেন। আপনি বাংলাদেশে এ কাজটা করতে পারবেন। ফেসবুক এখন সবাই ব্যবহার করে। ফেসবুকে মার্কেটপ্লেস নামে একটা অপশন আছে, সেখানে অনেক কিছুই বিক্রি হয়। আবার আপনি আপনার প্রোফাইলেও করতে পারবেন।

প্রথমে আপনি একটা শপের মালিকের সাথে চুক্তি করবেন।করার পর তার মাল গুলো আপনি আপনার ফেসবুকে সুন্দর মতো ছবি তুলে তার মান সম্পর্কে তুলে ধরবেন।  আপনার সাথের এড থাকা বন্ধুরা এটা দেখে ইন্টারেস্ট হয়ে কিনতে পারে। কিনার পর আপনি আপনার কমিশন পাবেন। আপনি বিভিন্ন গ্রুপেও পোস্ট করতে পারেন তাতে আপনার সেল পারবে সাথে কমিশন ও।

প্রোডাক্ট বিক্রি করে ইনকাম করুন

প্রোডাক্ট বিক্রি করে ইনকাম করুন 

প্রোডাক্ট বিক্রি করা অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং এর মতোই যা ইতি পূর্বে আলোচনা করা হয়েছে। তবে এখানে আরো কিছু গুরুত্বপূর্ণ কথা। আপনি প্রোডাক্ট বাচাইয়ের ক্ষেত্রে দামি বা কমিশন বেশি এমন প্রোডাক্ট বাচাই করবেন নাহ। যে প্রোডাক্ট বেশি বেশি মানুষ কিনে সেটা যাচাই করবেন আর তাতে আপনারও সেল আসতে পারে।

ওয়েবসাইট তৈরী করলে অবশ্যই ইজি রেংক করা কিওয়ার্ড  পছন্দ করবেন। লো কিউ ওয়ার্ড ডিফিকাল্টি দেখে নিবেন। বিস্তারিত ইউটিউব এ এমাজন অ্যাফিলিয়েট লেখে সার্চ দিবেন।

ফেসবুক পেইজ থেকে ইনকাম করুন সহজে

ফেসবুক পেইজ থেকে ইনকাম করার অনেক অনেক উপায়।আপনি চাইলেই বর্তমান সময়ে এটাকে কাজে লাগাতে পারেন। ফেসবুকে আমরা অনেক সময় দেই আর এ সময়টা কাজে লাগাতে পারাটাই বুদ্ধিমানের কাজ।

ফেসবুক পেইজের মাধ্যমে বিভিন্ন উপায়গুলো

  • অনলাইনে দোকান দিয়ে
  • ভিডিও আপলোড করে এডের মাধ্যমে 

অনলাইনে দোকান দিয়ে

কেউ ফেসবুক পেইজের মাধ্যমে দোকান দিয়ে প্রোডাক্ট বিক্রি করে। পরে অর্ডার আসলে তা ডেলিভারি করে। এতে দোকান খরচ থাকবে নাহ।

আপনি চাইলে একটা প্লানিং করে এ কাজটা করতে পারেন। এ বিষয়ে সুন্দর সুন্দর প্লানিং পেতে খালিদা ফারহানের ইউটিউব চ্যানেলে যেতে পারেন।লিংক খালিদ ফারহান

ভিডিও আপলোড করে এডের মাধ্যমে 

আপনি একটা ফেসবুক পেইজ তৈরী করে সেটাতে একটা নির্দিষ্ট ক্যাটাগরির ভিডিও আপলোড দিতে পারেন। ধরুন আপনারা কয়েকজন বন্ধু আছে। সবাই মিলে একটা ভালো ক্যামেরা কিনবেন। তারপর সবাই একটা মজার আইডিয়া বের করে ভিডিও তৈরী করবেন। হতে পারে সবাই মিলে বিভিন্ন মজাদার খেলা খেলবেন,  গুরতে যাবেন ইত্যাদি ইত্যাদি।  আর এ বিষয়গুলো মানুষ অনেক দেখে বর্তমানে। 

দ্রুত ভাইরাল হয়, আর আপনাদের ও ভালো টাকা ইনকাম হবে। আমি মনে করি এ পদ্ধতি বেস্ট৷ আমি নিজেও এটা করবো।

মোবাইল এ্যাপস তৈরী করে টাকা ইনকাম করুন

মোবাইল এ্যাপস তৈরী
মোবাইল এ্যাপস তৈরী

মোবাইল এ্যাপস তৈরী করেও এডসেন্সের মাধ্যমে আপনি মোটা অংকের টাকা ইনকাম করতে পারবেন। আপনাকে নিজের তৈরী করা শিখতে হবে আর না হয় কাউকে দিয়ে তৈরী করতে হবে। তারপর সেটা প্লে স্টোরে রেখে ইউজার বাড়িয়ে এডমোভে এড করে এড রান করাতে পারেন। বাংলাদেশের একজন ভালো এ্যাপস ট্রেইনার জুবায়ের হোসাইন।  আমি নিজেও শিখেছি। আপনাদের এ্যাপস দরকার হলে যোগাযোগ করতে পারেন নিচের জিমেইলে

[email protected]

টাকা ইনকাম করার অ্যাপ গুলো কি কি জানুন 2022

ভাষা ট্রান্সলেট করে টাকা ইনকাম করার সহজ উপায় বাংলাদেশে

ইংরেজি এবং অন্যান্য ল্যাঙ্গুয়েজ সম্পর্কে ভালো ধারণা থাকা উচিত। এবং সেগুলো ট্রান্সলেট করার দক্ষতা থাকা এক ধরনের বিশাল ব্যাপার। কেননা এ ব্যাপারে খুবই কম লোক জনই অবগত। আপনি যদি সে ট্রান্সলেট করার দক্ষতা অর্জন করতে পারেন, তাহলে আপনি অনলাইনে আয় করতে পারবেন। কেননা অনলাইনে আয়ের ক্ষেত্রে এর কদর যথেস্ট । 

আবার অনেক ধরনের ট্রানসলেশন প্রজেক্ট থাকে। যেগুলো ব্লগ অথবা বিভিন্ন কন্টেন্ট রাইটিং এর ক্ষেত্রে ব্যবহৃত হয়ে থাকে। বেশির ভাগ ট্রান্সলেট প্রজেক্টে লোকজন গুগল ট্রান্সলেট এর সহযোগীতা নেয়। বলে রাখি, এটি করে আপনি এই প্লেসে কোনো আয়ই করতে পারবেন না। 

আর যদি নিজের যোগ্যতায় সে টান্সলেশন প্রজেক্টে যদি ভালো ট্রান্সলেট করতে পারেন। তাহলেসেখানে কাজ করতে পারবেন। এবং টাকা আয় করতে পারবেন ।টাকা ইনকাম করার সহজ উপায় বাংলাদেশ সম্বন্ধে বিস্তারিত।

টাকার আয় করার ব্যাপারে এখানে কোনো দুশ্চিন্তা করতে হবে না। যদি স্প্যানিশ, ফ্রেন্স, আরব এসব দেশের ভাষা আয়ত্ত রাখেন, এবং ট্রান্সলেট করতে ভালো দক্ষ হোন। তাহলে আপনি টাকা আয় করার ব্যাপারে কোনো চিন্তা করতে হবে না। কারণ এর অনেক প্রজেক্ট এভেইলেবেল আছে। 

আবার বিভিন্ন ওয়েবসাইট, অথবা ফ্রিল্যান্সিং সাইটে ভাষা ট্রান্সলেট করার একটা জব আছে। যেখানে আপনি টাকা আয় করতে পারবেন । শুধু যে কোন একটি কনটেন্ট অথবা একটি বড়লেখা  ট্রান্সলেট করার মাধ্যমেই সম্ভব।,তবে এটি সময় সাপেক্ষ কাজ।

তাহলে আপনি একটা কাজ করতে পারেন। সেটা হলো সব সময় চেস্টা দিতে থাকবেন। একসঙ্গে অবশ্যই ট্রান্সলেট করার ব্যাপারে দক্ষ হবেন।

সোশ্যাল মিডিয়া মার্কেটিং

সোশ্যাল মিডিয়া মার্কেটিং
সোশ্যাল মিডিয়া মার্কেটিং

টাকা ইনকাম করার সহজ উপায় বাংলাদেশের মধ্যে সোশ্যাল মিডিয়া মার্কেটিং অন্যতম। সোশ্যাল মিডিয়া মার্কেটিং বলতে ফেসবুক-টুইটার গুগল ইনস্টাগ্রাম ও পিন্টারেস্টে প্রোডাক্ট প্রচার করা। পৃথিবীর বেশিরভাগ মানুষ সোশ্যাল মিডিয়া গুলোতে সক্রিয় থাকে। তাই প্রত্যেকটা কোম্পানি চায়, সোশ্যাল মিডিয়া গুলোতে তাদের প্রোডাক্ট এর প্রচার করতে। সোশ্যাল মিডিয়া গুলোতে ভালোভাবে প্রোডাক্ট কাস্টমারের কাছে পৌঁছাতে সোশ্যাল মিডিয়ায় এক্সপার্ট দরকার হয়। 

তাই আপনি যদি একজন সোশ্যাল মিডিয়া মার্কেটিং এক্সপার্ট হয়ে থাকেন। তাহলে আপনার কাজের কোন অভাব হবে না। আমাদের দেশে এমন অনেক বড় বড় কোম্পানি আছে, যাদের মার্কেটিং এর কাজ করে মাসে হাজার হাজার টাকা আয় করতে পারবেন। কিন্তু আপনাকে আগে সোশ্যাল মিডিয়া মার্কেটিং খুব ভালোভাবে শিখতে হবে। সোশ্যাল মিডিয়া মার্কেটিং শেখার অন্যতম প্ল্যাটফর্ম ইউটিউব। 

ইউটিউবে সার্চ করলে সোশ্যাল মিডিয়া মার্কেটিং সম্পর্কে অনেকগুলো কোর্স পেয়ে যাবেন। এই কোর্সগুলো আপনাকে খুব ভালোভাবে শিখতে হবে। কারণ কাজ করার জন্য মার্কেটিংয়ের কাজ করা শেখা অনেক গুরুত্বপূর্ণ। এছাড়াও আন্তর্জাতিকভাবে সোশ্যাল মিডিয়া মার্কেটিং কাজের চাহিদা অনেক বেশি। আন্তর্জাতিক অনলাইন ইনকাম প্লাটফর্ম গুলোতে সোশ্যাল মিডিয়া মার্কেটিং এর প্রয়োজন হয়। তাই আমি আপনাকে বলব, আগে খুব ভালোভাবে কাজ শিখুন। তারপর টাকা ইনকাম পথ বেছে নিন। 

অন্য পোষ্ট: টাকা ইনকাম করার ওয়েবসাইট

ইউটিউবিং করে সহজে টাকা আয় করুন 

ইউটিউবিং
ইউটিউবিং করে সহজে টাকা আয় করুন

অনলাইনে ইনকামের অন্যতম উপায় ইউটিউব। আপনি হয়তো বা এটি একটি শুধু ভিডিও দেখার জন্য ব্যবহার করে থাকেন। কিন্তু আমাদের দেশের এমন অনেক তরুণ আছে, যারা ইউটিউব থেকে মাসে হাজার হাজার টাকা ইনকাম করে। কিন্তু এইটা থেকে কিন্তু ভিডিও দেখে ইনকাম করা যায় না। ইউটিউব থেকে ইনকাম করতে হলে আপনাকে ভিডিও তৈরি করতে হবে। আপনি যে বিষয়ে প্রতি খুবই দক্ষ, সে বিষয় নিয়ে ভিডিও তৈরি করতে পারেন। 

ইউটিউব হাজার-হাজার কোন ভিডিও পাওয়া যায়। সেই ভিডিও গুলো তো এমনি এমনি আসে নাই। যারা এই ভিডিওগুলো ইউটিউবে আপলোড করেছে। তারা ইউটিউব থেকে মাসে টাকা ইনকাম করে। ইউটিউব থেকে টাকা ইনকাম এর কিছু শর্ত রয়েছে। আপনার ইউটিউব ভিডিও গুলো সম্পূর্ণ ইউনিক হতে হবে। কোন কপি করা ভিডিও ইউটিউব চ্যানেলে আপলোড করা যাবেনা।

ইউটিউব ভিডিও গুলো খুব সুন্দর ভাবে এডিটিং করতে হবে। যাদের বেশি তারা আপনার ভিডিওর প্রতি আগ্রহ থাকে। এমন ভাবে এটার ভিডিও তৈরি করতে হবে, যাতে গ্রাহক আপনার ভিডিও স্কিপ না করে। ইউটিউব থেকে অনেক ভাবে টাকা ইনকাম করা যায়। কিন্তু সব থেকে ভালো ইনকাম হয় গুগল এডসেন্সের মাধ্যমে। 

আমরা ইউটিউবে যখন ভিডিও দেখতে যাই। তখন বিভিন্ন প্রকার বিজ্ঞাপন দেখতে পাই। মূলত ইউটিউব থেকে এই বিজ্ঞাপন মাধ্যমে টাকা ইনকাম হয়। তাই দেরি না করে আজই একটা ভালো মানের ইউটিউব চ্যানেল খুলে ফেলো। শুধু ইউটিউব চ্যানেল খুলেই হবে না। ইউটিউব চ্যানেলে খুব সুন্দর সুন্দর ভিডিও আপলোড করতে হবে। 

টাকা ইনকাম করার সহজ উপায় বাংলাদেশে

আর্টিকেল রাইটিং

কোন গল্প বা প্রবন্ধ নিজের সৃজনশীলতা দিয়ে লেখা কে আর্টিকেল রাইটিং বলে। আর্টিকেল রাইটিং একপ্রকার শিল্প। সেই আদিকাল থেকেই মানুষ আর্টিকেল রাইটিং এর কাজ করে আসছে। বর্তমান প্রযুক্তির যুগে আর্টিকেল রাইটিং এর চাহিদা বৃদ্ধি পেয়েছে। কারণ বর্তমানে অনলাইন নিউজ পেপারের সংখ্যা বেড়ে গেছে। অনলাইন নিউজ পেপারের সংখ্যা বৃদ্ধি পাওয়ার সঙ্গে সঙ্গে ওয়েবসাইটের সংখ্যা বেড়ে গেছে। 

যারা নতুন ওয়েবসাইট তৈরি করে, তাদের ওয়েবসাইটের জন্য নতুন কন্টেনের প্রয়োজন হয়। তারা চায় একজন ভাল মানের কনটেন্ট রাইটার। আপনার লেখার প্রতি আগ্রহ থাকে। তাহলে আজ থেকে কনটেন্ট রাইটিং জব করা শুরু করতে পারেন। প্রাথমিক পর্যায়ে বাংলা ভাষায় রাইটিং শুরু করতে পারেন। বাংলা ভাষার কনটেন্ট এর দাম তুলনামূলকভাবে অনেক কম। কিন্তু আপনাকে নিজের কনটেন্ট লিখতে হলে নিজের অভিজ্ঞতার প্রয়োজন। 

আমাদের দেশে অডিনারি আইটি নামক একটি প্রতিষ্ঠান রয়েছে। তারা বিভিন্ন রকম অনলাইন ইনকাম করছেন বিক্রি করে থাকে। এর পাশাপাশি এই ওয়েবসাইটে আর্টিকেল লিখে ও টাকা ইনকাম করা যায়। আপনাদের অডিনারি আইটি লিংক দিয়ে দিচ্ছি। এই ওয়েবসাইট থেকে সহজে টাকা ইনকাম করতে পারবেন। 

অন্য পোষ্ট: মাসে ২০ হাজার টাকা আয় করার উপায়

ওয়েবসাইট থেকে ইনকাম

ওয়েবসাইটকে একটি অনলাইন নোটবুক মনে করা হয়। ওয়েবসাইটে বিভিন্ন রকম কনটেন্ট প্রকাশ করা হয়। গুগোল ইউটিউব ফেসবুক একটি ওয়েবসাইট। কিন্তু আপনি কি জানেন, এই ওয়েবসাইট থেকে খুব সহজে টাকা আয় করা যায়। ওয়েবসাইট থেকে টাকা ইনকাম এর জন্য আপনাকে কিছু বিষয়ে লক্ষ্য রাখতে হবে। 

ওয়েবসাইটে ২ ভাবে টাকা ইনকাম করা যায়। গুগল এডসেন্স ও অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং এর মাধ্যমে। এছাড়াও ই-কমার্স ওয়েবসাইট তৈরি করে টাকা ইনকাম করার। এ সম্পর্কে আরও বিস্তারিত ইউটিউবে জানতে পারবেন। কিন্তু অনেকেই প্রশ্ন করেন ওয়েবসাইট খুলতে কি কোন টাকা লাগে। 

ওয়েবসাইট খুলতে কোন টাকা লাগে না। কিন্তু ডোমেইন কিনতে হলে আপনাকে কিছু টাকা খরচ করতে হবে। মাত্র 100 টাকা দিয়ে একটি ডোমেইন পাওয়া যায়।

টাকা ইনকাম করার ওয়েবসাইট গুলো কি কি- জানুন 2022

ওয়েব ডিজাইনিং করে টাকা ইনকাম করার সহজ উপায় বাংলাদেশে 

ওয়েব ডিজাইন করার দক্ষতা একমাত্র তাঁরই থাকবে যে এ বিষয়ে যথেষ্ট কোর্স এবং টিউটোরিয়াল নিয়েছে। এবং এ বিষয়ে পড়াশো্নাও করেছে। যদি একটি ওয়েবসাইট ভালো ডিজাইন করার দক্ষতা থাকে। তাহলে আপনি আপনার সেই ওয়েবসাইট ডিজাইনিং দক্ষতাকে কাজে লাগিয়ে  অনেক টাকা ইনকাম করতে পারবেন।

কিন্তু আপনি কি জানেন যে ওয়েবসাইট ডিজাইনিং এর কদর এখন অনেক বেশি।কারন সব কিছুর আগে কিন্তু ওয়েবসাইট দরকার। ওয়েবসাইট থাকলে মানুষ অনলাইনে সব করতে পারে।

যদি ওয়েব ডিজাইনিং এবং সে বিষয়ে কোর্স করার ব্যাপারে আপনি যথেষ্ট দক্ষ হন। তাহলে একটি নিজস্ব ওয়েবসাইট তৈরী করে নিতে পারেন। যেখান থেকে আপনি ওয়েব ডিজাইনিং ডেভেলপারদের শিক্ষা দিতে পারবেন।নিজেও কোর্স করিয়ে টাকা ইনকাম করতে পারবেন। আমি নিজেও html css java javascript php shikhesi and wordpress

এবং নিজেও বিভিন্ন সাইটে ওয়েব ডিজাইন করতে পারবেন। এতে আপনার ওয়েবসাইটের জন্যে যেভাবে কল্যান হবে। ঠিক সেভাবে আপনি এটা করতে পারবেন ওয়েব ডিজাইনিং এর মাধ্যমে। সকল ফ্রী ল্যান্সিং সাইট এ জব সমর্থিত। এটি টাকা ইনকাম করার সহজ উপায় বাংলাদেশে। 

গেইম খেলে টাকা ইনকাম করুন

গেইম খেলে টাকা ইনকাম করাটা হলো মুখে ভাত তুলে দেওয়ার মতো। আপনার কমপিউটার দিয়ে গেইম খেলতে পারবেন অনেক বড়ো ধরনের। আর সে খেলা আপনি লাইভে খেলবেন। ফেইসবুক বা ইউটিউবে লাইভে গেলে অনেক মানুষ আপনার খেলা দেখবে আর এতে আপনার অনেক টাকা ইনকাম করার সু্যোগ। টাকাও ফেলেন খেলতেও পারলেন।

টাকা ইনকাম করার সহজ উপায় বাংলাদেশে নিয়ে শেষ কথা 

আপনাদের সামনে টাকা ইনকাম করার অনেকগুলো উপায় আলোচনা করেছি। সবকয়টি উপায় গুলি দিয়ে অনলাইনে টাকা আয় করা যায়। আশা করি, টাকা ইনকাম করার সহজ উপায় বাংলাদেশে আর্টিকেলটি আপনার ভালো লেগেছে। 

অনলাইন ইনকাম রিলেটেড আর্টিকেল পেতে আমাদের ব্লগ সাইটে চোখ রাখুন। আমরা সবসময় চেষ্টা করি রিয়েল ইনফরমেশন শেয়ার করার। অনলাইন ইনকাম, বাংলাদেশে প্রযুক্তি বিষয়ক জ্ঞান শেয়ার করে থাকি। তাই সবসময় আমাদের সঙ্গে থাকবেন। আর্টিকেলটি পড়ার জন্য ধন্যবাদ। 

আপনার জন্য আরোঃ

টাকা ইনকাম করার সহজ উপায় বাংলাদেশে,টাকা ইনকাম করার সহজ উপায় বাংলাদেশে, টাকা ইনকাম করার সহজ উপায় বাংলাদেশে

Leave a Comment

Your email address will not be published.