শবে কদরের নামাজের নিয়ম ও নিয়ত। আমল

শবে কদরের নামাজের নিয়ত ও নিয়ম লাইলাতুল কদর


শবে ক্বদরের নামাজ এই নামাজ রমযান মাসের ২৬ তারিখ দিনগত রাত্রিতে পড়িতে হয়। বিতর নামাজের পর হইতে ছোব্‌হে কাজেব পৰ্যন্ত এই নামাজের সময় থাকে। নামাজ, কোরান তিলাওয়াত, যিক্র, মোরাকাবা, দোয়া-দরূদ, ইস্তিগফার ইত্যাদি নফল এবাদতে সারা রাত্রি জাগরণ থাকিলে বেশুমার ছওয়াব পাওয়া যায় এবং সমস্ত গুনাহ্ মাফ হয়। দুই রাকাত করিয়া এই নামাজ পড়িতে হয়।


যা যা জানতে পারবেনঃ-

  1. শবে কদরের নামজের নিয়ম
  2. শবে কদরের নামাজের নিয়ত
  3. শবে কদরের নামাজের ফজিলত
  4. শবে কদরের নামাজের দোয়া
  5. সূরা কদর আরবি ও বাংলা
  6. সূরা কদর অডিও


সব নামাজের যেমন নিয়ত রয়েছে তেমনি এই মহামান্বিত রাতের নামজের নিয়ত অ রয়েছে। শবে কদরের নামাজের নিয়ত আরবি এবং বাংলা দেয়া হয়েছে।

শবে কদরের নামাজের নিয়ত :

নামাজের নিয়ত

শবে কদরের নামাজের নিয়ত বাঃ উঃ― নাওয়াইতু আন্ উছাল্লিয়া লিল্লাহে তায়ালা রাকয়াতাই ছালাতে লাইলাতিল্ ক্বারে মোতাওয়াজ্জিহান ইলা জিহাতিল কা’বাতিশ শারীফাতে আল্লাহ আব্বর।


শবে কদরের নামাজের নিয়মলাইলাতুল কদরের নামাজের নিয়ম


শবে কদরের নামাজ পড়িবার নিয়ম – এই নামাজ ইশার নামাজের পর তারাবীহ্ ও বিতর নামাজ পড়িয়া পড়িতে হয়।

  • নামাজের জায়গায় দাঁড়ীয়ে জাযনামাজের দোয়া পড়বেন । ইন্নি-অজ্জাহাতু এই দোয়া
  • তারপর উপরে দেওয়া নিয়ত পড়বেন
  • তারপর ছানা পড়বেন। চোবহাণাকা আল্লা হুম্মা এই ছানা
  • তারপর আলহামদুলিল্লাহ সূরা পড়বেন
  • তারপর সূরা মিলাবেন

যে সুরাগুলো মীলাবেন তা নিচে বিস্তারিত আলোচনা করা হল


(১)শবে কদরের নামাজ পড়িবার নিয়ম পবিত্র হাদীছ শরীফে আছে, শবে ক্বদরের রাত্রিতে চার রাকাত নামাজ পড়িতে পারা যায়। এই নামাজের প্রত্যেক রাকাতে সূরা “ইন্না আনযালনা একবার এবং সূরা ইখ্লাছ সাতাইশ বার পড়িতে হয়। এই নামাজ পড়িলে নামাজীর সমস্ত গুনাহ্ মাফ হইয়া যাইবে; সে যেন মায়ের উদর হইতে অদ্যই ভূমিষ্ঠ হইয়াছে। আল্লাহ্ তায়ালা তাহাকে বেহেশতে এক হাজার মহল দান করিবেন।

(২) শবে কদরের নামাজ পড়িবার নিয়ম পবিত্র হাদীছ শরীফে আছে, এই রাত্রিতে দুই রাকাত নামাজ পড়িবে, প্রত্যেক রাকাতে সূরা “ইন্না আনযালনা” একবার এবং সুরা ইখলাছ” তিনবার পড়িবে। এই নামাজ পড়িলে আল্লাহ্ তায়ালা তাহাকে শবে ক্বদরের রাত্রির সমস্ত ছওয়াব দান করিবেন। তাহার রোযা কবুল করিবেন এবং তাহাকে হযরত ইদ্রিছ আলাইহিছছালাম, হযরত শোয়াইব আলাইহিছ্ছালাম, হযরত আয়ুব আলাইহিছ ছালাম, হযরত দাউদ আলাইহিছছালাম এবং হযরত নূহ আলাইহিছছালামের মত, ছওয়াব দান করিবেন এবং বেহেশতে তাহাকে মশরিক হইতে মগরিব পর্যন্ত এক শহর দান করিবেন।







পবিত্র হাদীছ শরীফে আছে, এই রাতে আরও চার রাকাত নামাজ পড়া যায়। প্রত্যেক রাকাতে সুরা ইন্না আনযালনা” তিন বার এবং সূরা “ইখলাছ”। পঞ্চাশ বার পড়িবে। নামাজের পর সিজদায় যাইয়া নীচের দোয়াটি একবার পড়িবে।


سبحان الله والحمد لله ولا إله إلا الله والله أكبره

বাঃ উঃ— সুবহানাল্লাহি ওয়াল্ হামদু লিল্লাহি ওয়া লা-ইলাহা ইল্লাল্লাহু ওয়াল্লাহু আব্বর।

অর্থঃ আমি আল্লাহ্ তায়ালার পবিত্রতা বর্ণনা করিতেছি এবং সমস্ত প্রশংসা আল্লাহ্ তায়ালার জন্য, এবং আল্লাহ্ তায়ালা ব্যতীত অপর কোন মা’বুদ নাই। আর আল্লাহ্ তায়ালা সর্বশ্রেষ্ঠ।

তারপর যে দোয়া করিবে, কবুল হইবে। আল্লাহ্ তায়ালা তাহাকে অসীম নিয়ামত দান করিবেন এবং সমস্ত গুনাহ্ মাফ করিবেন।

(৩) শবে কদরের নামাজ পড়িবার নিয়ম এই রাত্রিতে দুই রাকাত করিয়া আরও বার রাকাত নামাজ পড়া যায়।এই নামাজের প্রথম রাকাতে সূরা “ইন্না আন্যাল্না” একবার এবং দ্বিতীয় রাকাতেসূরা “কাফিরূন ” একবার পড়িতে হয়। এই নিয়মে বার রাকাত নামাজ আদায় করিবে।শবে কদরের রাত্রিতে নীচের দোয়াটি বেশী পরিমাণে পড়া আবশ্যক।


শবে কদরের নামাজের দোয়া



শবে কদরের দোয়া

শবে কদরের নামাজের দোয়া বাঃ উঃ- আল্লাহুম্মা ইন্নাকা আফুউন্ তুহিব্বুল্ আফ্‌ওফা ফা’ফু আন্নী ইয়া গাফু, ইয়া গাফুরু, ইয়া গাফুর্।


শবে কদরের নামাজের দোয়া অর্থঃ হে আল্লাহ্। নিশ্চয় তুমি ক্ষমাশীল, তুমি ক্ষমাকে ভালবাস। অতএব আমাকে ক্ষমা করিয়া দাও। হে অতি ক্ষমাকারী, হে অতি ক্ষমাকারী, ; হে অতি ক্ষমাকারী!




tags:আমল,ইসলাম, home

শবে কদরের ফজিলত জানতে ক্লিক করুন 

Leave a Comment

Your email address will not be published.