যেভাবে লিপস্টিক তৈরি করে এবং খেয়ে ফেললে কোনো ক্ষতি হবে কিনা?

যেভাবে লিপস্টিক তৈরি করে এবং খেয়ে ফেললে কোনো ক্ষতি হবে কিনা?

লিপিস্টিক তৈরি করতে পারাটা মেয়েদের জন্য অনেক শখের বিষয় কারণ এটা মেয়েদের নিত্য প্রয়োজনীয়  বিউটি সরঞ্জাম এবং এটা সম্পর্কে তারা জানতে বেশ পছন্দ ও করে |কখনো কখনো তারা এটা খেয়ে ফেলে , খেলে কোনো সমস্যা হবে কি না তাও আজকে আপনাদের জানিয়ে দিবো এবং খেয়ে ফেললে কোনো উপকার আছে কিনা তা জানাবো|

চলুন আজকে লিপিষ্টিক নিয়ে নতুন কিছু জানি। যেহেতু আমি সুইডিশ একটা কসমেটিকস কোম্পানীতে আছি আর অলটাইম কসমেটিকস নিয়ে ঘাটাঘাটি সেহেতু যা লিখতেছি সবকিছুই আমার অভিজ্ঞতা থেকে। শুধুমাত্র শেখার জন্য – 

কি থেকে লিপিষ্টিক তৈরী হয়


১) লিপিষ্টিক তৈরী হয় ডাই থেকে। অরজিনাল বা ন্যাচারাল লিপিষ্টিক তৈরী হত একটা পাতার পিগমেন্ট থেকে। বর্তমানে সকল ডাই তৈরী হয় ভ্যাজলিন থেকে। এর সাথে কালার পিগমেন্ট মেশানো হয়।


আপনি ঘরে বসেই হুডা লিপিষ্টিক বানাতে পারবেন|

লিপস্টিক তৈরি


২) আপনি ঘরে বসেই হুডা লিপিষ্টিক বানাতে পারবেন যদি আপনার কাছে ডাই থাকে। (আমার ফিউচার পার্টনারের জন্য গুড নিউজ হলো, সবচেয়ে ভাল লিপিষ্টিক ডাই এবং পিগমেন্ট কোথায় পাওয়া যায় সেটা আমি জানি এবং আমি একবার চেষ্টা করে দেখেছি, সেটা সফলও হয়েছে। সেই হিসেবে আমি মোটামুটি ভালোই লিপিষ্টিক বানাতে পারি। তবে স্টিকি বা থিক হলেও স্ট্রং হয়নি।



 লিপস্টিকের আকর্ষণীয় এবং স্বাস্থ্যকর|


৩) ম্যাট লিপিষ্টিক ডাই তৈরীতে কর্ড মাছের গ্লুকোজ ব্যবহার করা হয়। ফলে ম্যাট লিপিষ্টিক কিছুটা স্বাস্থ্যকর

৪) এফডিএ এপ্রুভ ফুড গ্রেড ক্যাফেইন ব্যবহার হয় ন্যুড লিপিষ্টিকে। ক্যাফেইন ব্রেনে অত্যাধিক এন্ড্রোফিন বৃদ্ধি করে।ক্যাফেইন কোন কিছুর প্রতি নেশা বাড়ায়। ফলে উক্ত জিনিষ বারবার করতে আপনাকে প্রলুব্ধ করবে।

৫) ন্যুড কালার গুলো উজ্জল লাল রংয়ের হয়। শার্প কালার ব্রেনে টেসটেষ্টাসরোণ বৃদ্ধি করে। ফলে ন্যুড কালার লিপিষ্টিকে কাউকে দেখলে প্রেমে পড়েও যেতে পারেন।



লিপস্টিক খেয়ে ফেললে কোনো ক্ষতি হবে কিনা?

লিপস্টিক  খেয়ে ফেললে কোনো ক্ষতি হবে কিনা


৬) লিপিষ্টিক খেলে কখনোই আপনার পেটে অসুখ হওয়ার সুযোগ নেই। কারণ লিপিষ্টিকে এন্টিব্যক্টিয়াল উপাদান থাকে যাতে ঠোটকে সকল জীবাণু থেকে সুরক্ষিত থাকে। অল্প পরিমাণ লিপিষ্টিক খেলে কোন ক্ষতি হওয়ার সুযোগ তো নেয়ই বরং তা মুখের ভিতরকার জীবানু দুর করতে সহযোগীতা করতে পারে। তবে সেটা অবশ্যই ব্র্যান্ডের হতে হবে।


লিপিষ্টিক বানানোর সময় কোম্পানীগুলো কি  পুরুষদের কথাও কিছুুটা ভাবে?

৭) আমরা অনেকেই ভাবি লিপিষ্টিক বানানোর সময় কোম্পানীগুলো সম্ভবত পুরুষদের কথাও কিছুুটা ভাবে। আশ্চর্য উত্তর এটা সত্য নয়। আমাদের কোম্পানীতে থাকা ইরানীয়ান কেমিষ্ট্রিয়ানকে আমি প্রশ্নটা করেছিলাম। তার উত্তর ছিল, আমরা পুুুরুষদের স্বাস্থ্যের কথা লক্ষ্য করে ম্যাটেরিয়াল বানাই না, বরং আমরা শিশুদের স্বাস্থ্যের কথা বিবেচনা করি। যাতে লিপিষ্টিক পরে শিশুদের চুমু দিলেও তাদের ত্বকের কোন ক্ষতি না হয়। (উত্তর শুনে যদিও আমি কিছুটা হতাশ হয়ে ছিলাম 🥲)

৮) আমাদের কোম্পানী সর্বপ্রথম ড্রপলেটস প্রতিরোধী লিপিষ্টিক বানিয়েছে ডক্টরদের জন্য। আমাদের পণ্য ব্যবহার করে আপনাকে মাষ্ক পরে চুুমু খেতে হবে না। বরং লিপিষ্টিক কোন ভাবে লালার দ্বারা ভিজে গেলে তা মুখে গলে আপনা আপনিই এন্টিব্যকটেরিয়াল হিসেবে কাজ করে। তবে ডিপ কিছু করলে সেক্ষেত্রে কোম্পানী দায়ী থাকবে না। আমাদের পেটেন্ট রানিং।

৯) লিপিষ্টিকে সুন্দর গন্ধ তৈরী করতে জাপানের কোন একটা ধরনের গাছের ফুল ব্যবহার করা হয়। এই ফুলের গন্ধ দীর্ঘক্ষণ থাকে। অরজিনাল হুডা প্রোডাক্টসে এই ফুল ব্যবহার করে।

১০) এক ষ্টিক পরিমান লিপিষ্টিক উন্নত ডাই থেকে তৈরী করতে খরচ হয় ১৭ টাকা। এরপর যার কাছে যা দাম রাইখা পারে।

(লেখা পড়ে কেমন লাগলো জানাতে ভুলবেন না)




Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *